Blog

কলকাতার ফুচকা

এমন দেশটি কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে কি না জানিনা। তবে কলকাতার ফুচকা অন্য কোথাও সহজে জুটবে না, সেটা নিশ্চিত। গন্ধরাজ লেবুর রস ছড়িয়ে পৃথিবীর অন্য কোথাও ফুচকা পরিবেশন হয় না বলেই আমার এই বিশ্বাস। নুন,কাঁচা লংকা বাটা, সেদ্ধ ছোলা, অল্প তেঁতুল জল, অল্প কুচোনো পেঁয়াজ দিয়ে দরদ দিয়ে মাখা আলু সেদ্ধ। চুরমুরের বুক চিরে তাঁর গলা পর্যন্ত আলু মাখা ভরে, তেঁতুল জলে টইটুম্বুর করে, শাল পাতার ভাঁজে ছেড়ে দেওয়া। ফুচকা থাকতে পি সি সরকার’কেই বাংলার সেরা ম্যাজিশিয়ান বলার কোন মানে হয় না।

ফুচকা অতি রেওয়াজি ব্যাপার। ওইসব দই-ফুচকা বা মিষ্টি ফুচকা হচ্ছে বে-ফালতু ন্যাকামো মাত্র। আস্‌লি ফুচকা হবে টকে, ঝালে , নুনে পরিপূর্ণ অ্যাটম বোমা। চার নম্বর ফুচকা মুখের ভিতর চালান হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঝালের দাপটে যদি নাকের জল চোখের জল মিশে খতরনাক হালত না হয় তো আপনার ফুচকা খাওয়া বৃথা।

আদত ফুচকা খাইয়ে মাত্রই হবেন শুচিবাইগ্রস্ত।

“আহা:, নুন সামান্য বেশি”। “ছোলা বেশি ঢেলেছ বাবা রামলোচন”। “ফুচকার জল ঠিক করে ভরছনা কেন হে ?”। “আলু মাখাটা ঠিক স্মুদ্‌ হয়নি”। এমন গোছের অভিমান, অনুযোগ, আবদার একটানা চলবে; এইটেই হচ্ছে ফুচকা খাওয়ার রীতি। এবং ফুচকা ভক্ষণের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং উপাদেয় অংশটি হচ্ছে শেষের ফাউ ফুচকাটি; বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই সপাট মেজাজে চেয়ে নেওয়া “এইবার একটা ফাউ ফুচকা দিজিয়ে। উইদাঊট তেঁতুল জল। আউর বেশি করকে বিট নুন ছড়িয়ে দেনা। কেমন?”

ফুচকা ঘটিত সেন্টিমেন্টের তীব্রতম নিদর্শন আমার কলেজ বন্ধু দীপক। কলেজের প্রথম হপ্তায় যখন আমরা মেয়েদের দিকে আড় চোখে তাকাতে গিয়েও ভির্মি খাচ্ছি, স্মার্ট চ্যাপ দীপক দুম করে একটি প্রেমিকা জোগাড় করে ফেললে। কিন্তু আমাদের ঈর্ষা দানা বাঁধার আগেই, দু দিনের মাথায় দীপক জানালে যে প্রেম খতম। আমার অবাক।

- “প্রেম ভেঙ্গে গেল? কেন ? ঈশানী লেঙ্গি মারলে?” , আমরা জানতে চাইলাম।

- “এমন সোনার টুকরো ছেলেকে লেঙ্গি মারবে? পাগল না কি? আমি কেটে পড়লাম। মান থাকতে সরে পড়লাম আর কি”

- “কেন? কেন?”

- “আরে এই ঈশানী মেয়েটা ভারি গোলমেলে”

- “গোলমেলে কেন?”

- “কাল কলেজ স্কোয়ারে গপ্প-গুজব করে বেরবার মুখে বললাম চল ফুচকা খাই। ঈশানী বললে সে ফুচকা খায় না, মেদবৃদ্ধি ও অম্বলের ভয়ে। ব্যাস, সঙ্গে সঙ্গে আমি চুক্কি দিয়ে কেটে পড়লাম। আর জীবনে আমি ইশানি-মুখো হচ্ছি না। ফুচকা না খাওয়া প্রেমিকা থাকা আর পিকনিক করতে ধাপার মাঠে যাওয়া একই ব্যাপার।”

[Read previous posts on Coolকাতা >>]


< Back to List

 
Comments (4)
 
Soumik Reply
November 04, 2013
Phuchka-te peyaj? Gondho lebu? Sorry not for me. Ei dutoi Kolkata-te notun amdani.
Sounak Reply
November 04, 2013
Ha ha ha... but i have never seen or heard about a girl who does not love gulping these pale yellow wonders. Nice writing... but i personally dnt eat fuchka due to the water. smtimes i eat home made ones. :)
Suman Barman Reply
November 01, 2013
Very humorous piece about something quintessentially Kolkatan. Loved reading it.
Anirban Reply
November 01, 2013
Brings to my mind some wonderful memories of eating phuchka too.
 
Post a Comment Comments Moderation Policy
 
Name:    Email:
 
Comment:
 
 
 
Security Code:
(Please enter the security code shown above)
 

Comments and Moderation Policy

MaaMatiManush.tv encourages open discussion and debate, but please adhere to the rules below, before posting. Comments or Replies that are found to be in violation of any one or more of the guidelines will be automatically deleted.

  • Personal attacks/name calling will not be tolerated. This applies to comments or replies directed at the author, other commenters or repliers and other politicians/public figures. Please do not post comments or replies that target a specific community, caste, nationality or religion.

  • While you do not have to use your real name, any commenters using any MaaMatiManush.tv writer's name will be deleted, and the commenter banned from participating in any future discussions.

  • Comments and replies will be moderated for abusive and offensive language.

×

© 2017 Maa Mati Manush About Us  |  Contact   |   Disclaimer   |   Privacy Policy   |   Site Map