M3 Views

মমতার ক্যারিসমা বা গনমহিনীশক্তিতে উত্তরণ অতি অল্পসংখ্যক উচ্চকোটির মানুষ এখনো মেনে নিতে পারেন না

অমিয় চৌধুরী  | May 1, 2014

ম্যাক্স ওয়েবার রাজনৈতিক নেতৃত্বের রকমফের দেখিয়েছেন। ব্যাখ্যা করেছেন। নানা দেশের উদাহরণ দিয়ে বলা যায় – একনায়কতান্ত্রিক নেতৃত্ব, পারিবারিক নেতৃত্ব, সমষ্টিগত নেতৃত্ব এবং ক্যারিশ্মাটিক নেতৃত্ব। এই সব নেতৃত্বের অস্তিত্ব বহুদেশে সর্বকালে দেখা যায়। আলোচনায় যে প্রশ্নটা বড় করে আসে সেটা হল ক্যারিশ্মাটিক বা বাংলা করে বলা যায় গনমোহিনী নেতৃত্ব। গনমোহন বা জনমোহন নেতা বা নেত্রী হয়ে ওঠার কতগুলি মূল কারণ থাকে। পারিবারিক ঐতিহ্য এবং অবস্থান, শিক্ষাগত যোগ্যতা, শ্রেষ্ঠত্ব, ব্যক্তিত্বের আকর্ষণীয় ক্ষমতা, চেহারা অথবা এমন কিছু গুনের সমাহার এবং প্রকাশ যা জনমানসে প্রচন্ড আকর্ষণীয় বলে মনে হয়। ভারতবর্ষে জওয়াহারলাল নেহেরু, আমেরিকার ফ্রাঙ্কলিন রুজভেল্ট, ব্রিটেন এর উইন্সটন চার্চিল, ফ্রান্সের রাষ্ট্রপতি দ্য’গল। এমন উদাহরণ দেশে কালে অজস্র। এরা প্রায় সকলেই পারিবারিক ঐতিহ্য নিয়ে এবং পরবর্তী কালে বিদ্যায় বুদ্ধিতে, অপরিমেয় রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, এবং শিক্ষাদীক্ষায় নিজ নিজ দেশের মানুষের শ্রদ্ধার আসনলাভ করেন। জনগনের চাওয়াতেই রাষ্ট্র পরিচালনায় সূক্ষ্মতা এবং রাষ্ট্র নায়কের ভূমিকা পালন করে গিয়েছেন। জনগনের অকুণ্ঠ সমর্থন পেয়েছেন।

জওয়াহারলাল নেহেরুর মত আরো বহু নেতা দেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে আত্মনিয়োগ করেছিলেন। তাদের অনেকেরই নাম খুব শ্রদ্ধার সঙ্গে উঠে আসে। পঞ্জাবের বি পি কৈরালা, ওড়িশার বিজু পট্টনায়ক, উত্তর প্রদেশের গোবিন্দবল্লভ পন্থ, বিহারের শ্রীকৃষ্ণ সিংহ, বাংলার বিধানচন্দ্র রায় এমনকি শেষ পর্যায়ে জ্যোতি বসুর নাম ও করা যায়। রাষ্ট্র বা রাজ্য পরিচালনায় এরা সকলেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন এবং এদের জনগ্রাহ্যতাও অগ্রাহ্য করার উপায় নেই। কিন্তু ভেবে দেখলে দেখা যায় এদের ব্যক্তিত্ব বিকাশে কোন কোন উপাদান বেশি বড়ো হয়ে উঠেছে। কেউ জমিদার, কেউ পিতৃদত্ত উত্তরাধিকার বহন করেছেন। কেউ বিদেশে বিদ্যা অর্জন করে এসেছিলেন সেই কালে। এমনকি এই বাংলাদেশেই বহুদিন বাস করে গেছেন মৌলানা আবুল কালাম আজাদ। তিনি ভারতবর্ষের প্রথম শিক্ষামন্ত্রীর পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। সর্দার প্যাটেল, গান্ধীর খুব কাছের এবং খুবই বিশ্বস্ত মানুষ ছিলেন। ভারতবর্ষের জনগনের সর্বস্তরের মানুষের সমর্থন তিনি পেয়েছিলেন। তিনি শক্তধাতের মানুষ ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার হক্‌ও তার ছিল। কিন্তু এরা কেউই সেই অর্থে ক্যারিশ্মাটিক বা গনমোহন আকর্ষণ শক্তির অধিকারি ছিলেন না।

গান্ধীজির স্নেহ বর্ষিত হয়েছিল জওয়াহারলাল নেহেরুর ওপর। জওয়াহারলাল, মোতিলাল নেহেরুর সন্তান। রুপোর চামচ মুখে নিয়ে জন্মেছিলেন। বাড়ির ঐতিহ্য হিসাবে ঘোড়ায় চড়া থেকে শুরু করে ওনেক কিছু শিখতে হয়েছিল। আনন্দভবনে গান্ধী সহ অনেক বড় বড় রাজনৈতিক ব্যক্তির সঙ্গে সেই ছেলেবেলা থেকেই পরিচিত। পরে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ট্রাইকোর্স করে ফেরেন। সকলের দৃষ্টি তখন ছোট নেহেরুর ওপর। রাজনৈতিক সংগ্রাম, গান্ধীজির একান্ত সান্নিধ্য ইত্যাদি তার রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি গড়ে দেয়। জেলে বসে অতি উচ্চমানের আত্মজীবনী লেখেন। কন্যার জন্য অসাধারণ “গ্লিম্পসেস অফ্‌ওয়ার্ল্ড হিস্টরি” ইত্যাদি বই লেখেন। এই বইগুলো অতি উচ্চমানের। জনগনের কাছে এমনকি রবীন্দ্রনাথের কাছেও তিনি ঋতুরাজ। সর্বোপরি তখনকার ভারত ইতিহাসের কার্যকরী নীতি নির্ধারক সর্বদা গান্ধীজির ছত্র ছায়ায় বাস করেছেন। সুতরাং প্রধানমন্ত্রী তিনি হতেনই। সবাইকে পেছনে ফেলে গান্ধীজির মদতপুষ্ট তিনি। ততোদিনে স্বাধীনতা সংগ্রামের কালেই তিনি এক ক্যারিশ্মাটিক বা গনমোহন নেতা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়ে যান। অথচ তার কি কোন দোষ ছিল না! ছিল এবং তা অজস্র। তবে সে এক ভিন্ন আলোচনা।

এইবার আসি এক সাধারণ মেয়ের কথায়। কি করে তিনি সাধারণ থেকে অসাধারণ হয়ে উঠলেন। ওপরে যাদের নাম তাদের মত এই মেয়ে ক্যারিশ্মাটিক হয়ে ওঠার কোন ঐতিহ্যই বহন করেননি। তিনি যা করলেন সবটাই তার নিজের কঠোর প্রচেষ্টায়। তাকে নেহেরু, ইন্দিরা ঘরানার মত কোন মুরুব্বীর ছত্র ছায়ায় বড় হয়ে উঠতে হয়নি। রাজনীতির অঙ্গনে শুধু চলার নেশায় নিজেকে প্রস্তুত করেছেন তিলে তিলে। লেখা পড়ায় কারো সাহায্য না নিয়েই একে একে সর্বোচ্চ স্তরে পৌঁছে যান। সাধারণ নিম্ন মধ্যবিত্ত পরিবারের এক আগুন-ঝরা খাঁটি মেয়ে। পারিবারিক কোনো ঐতিহ্যের বোঝা তাকে বহন করতে হয়নি। অথচ মানুষের পরিবারে কেমন নিজেকে যুক্ত করে দিয়েছিলেন। চলার পথ সহজ ছিল না। বিশেষ করে ঈর্ষা প্রবণ বঙ্গভাষা কমিউনিস্ট অপপ্রচারের শিকার হতে হয়েছে বারে বারে। শুরু সেই জয়প্রকাশের কলকাতায় আগমনের কাল থেকে। আপোষহীন লড়াই তাকে করতে হয়েছে ঘরে বাইরে। ১৯৯০ সাল থেকেই তিনি বাংলার মাটিতে গেঁড়ে বসা কমিউনিস্ট শাসনের ভয়ঙ্কর রূপ জীবনমৃত্যু পায়ের ভৃত্য করে তাকে অনুভব করতে হয়েছিল। নিজের কংগ্রেস ঘরানায়, সেই ছোটখাটো মেয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, দেখেছিলেন সার্বিক ব্যক্তিগত লাভ লোকসানের খতিয়ানা। অল্প কিছু সঙ্গী-সাথী নিয়ে মমতা কে একলা লড়তে হয়েছে। প্রতিপদে জ্যোতিবাবুর মত মানুষও মমতাকে কুৎসায় ডুবিয়ে দিতে চেষ্টা করেছেন। বুদ্ধদেব বাবুরা তো আরো এক কাঠি সরসতা দেখিয়েছেন। তবু একক প্রচেষ্টায় ৩৪ বছরের এক স্ট্যালিনীয় শাসনের এক দূর্গ প্রাকারকে ভেঙ্গে দিয়ে সাধারণ মানুষের চোখের মণি হয়ে ওঠেন। তিনি যেন হ্যামলিন এর বাঁশিওয়ালী। লাখো মানুষ তার সভা পূর্ণ করে। অথচ দূর্ভাগ্য জ্যোতি বসু, বুদ্ধদেব ভট্টাচার্যের মত সমাজের উচ্চকোটি সেই সীমিত স্তরটি এখন যেন মমতার প্রাথমিক কালের সেই সাধারনত্মকে অসাধারনত্মে উত্তরণ মেনে নিতে পারেননি। এই স্তরের মানুষের একটা অংশ ঈর্ষা আর অহংকারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই ক্যারিশ্মাকে মেনে নিতে পারেননা। যদিও এদের সংখ্যা শতকরা হিসেবে সত্যি অতি নগন্য। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মমতাই। তিনি কারুর মত নন। নগন্য সংখ্যার মানুষজন যাই বলুন না কেন। উচ্চ কোটি অর্থৎ এলিট, যাদের ভদ্রলোক বলা হয় তাদের কাছে মমতা অতি সাধারণ। তার পারিবারিক ঐতিহ্য নেই। অর্থ কৌলীন্যে তিনি ঘরের সাধারণ মেয়ে। তাকে ব্যঙ্গ করা যায় কখনো বা অপমান। তাকে রাষ্ট্রনেত্রীর ভূমিকায় দেখা যায় না, একদিন তাদের এই ধারণাই ভাঙবে।

< Back to List

 
Comments (1)
 
Pranab Hazra Reply
May 18, 2014
Mamata Bandyopadhyaya is a right person to break the concept of aristocracy & baristocracy in Indian politics and the observation of the author is correct.....Jorge Orwell stated ,communist always thought that none could a honest person who were not a communist. The Bengal communist also treat everything and everybody disdainfully.Mamata Bandyopadhyaya is their main target.But they will not be successful ,because reality says another thing.
 
Post a Comment Comments Moderation Policy
 
Name:    Email:
 
Comment:
 
 
 
Security Code:
(Please enter the security code shown above)
 

Comments and Moderation Policy

MaaMatiManush.tv encourages open discussion and debate, but please adhere to the rules below, before posting. Comments or Replies that are found to be in violation of any one or more of the guidelines will be automatically deleted.

  • Personal attacks/name calling will not be tolerated. This applies to comments or replies directed at the author, other commenters or repliers and other politicians/public figures. Please do not post comments or replies that target a specific community, caste, nationality or religion.

  • While you do not have to use your real name, any commenters using any MaaMatiManush.tv writer's name will be deleted, and the commenter banned from participating in any future discussions.

  • Comments and replies will be moderated for abusive and offensive language.

×

© 2017 Maa Mati Manush About Us  |  Contact   |   Disclaimer   |   Privacy Policy   |   Site Map